da4ba7d1b5688305010f9df38ec6fbfe045d25e0 Most Terrible horror ghost stories in bangla: বিড়ালছানা
name="propeller" content="2ed678d440884c082cf36a57cdf105f7"

Monday, December 11, 2017

বিড়ালছানা

Halloween theme:Two woman hands opening a wooden door with ghost girl on black background.film filter effect.


বিড়ালছানা
)::: ::: :::::::::(
পেশায় একজন সাইনটিস্ট ছিলাম ঐ সুবাদে নানা কারণে নানা জায়গায় বদলি হওয়াটা অস্ভাবিক কিছু না,, শেষ বদলি হয়ে ছিলাম ঢাকাতে,, বাসায় আসার পর কয়েক মাস খুব ভালো ভাবে কেটে গেলও পাশাপাশি চারপাশের মানুষকে মোটামুটি চিনতাম,,, ছুটির একদিন বাসায় বসে বই পড়ছি হঠাৎ পাশের বাসায় আনিসুজ্জামান লোকটি এসে হাজির উনি এসে চারদিকে দেখে খুব খুশি হলেন এবং জিগ্গাসা করলেন আপনি বই পড়েন,,, আমি বললাম জ্বী 😊অনেক সময় ধরে কথা বলার পর উনি বুঝতে পারে আমি ওনার কথায় বিরক্তিবোধ করছি উনি হঠাৎ বলে উঠলেন আপনি বিরক্তিবোধ করছেন আমার কথায়,,,, তখন আমি একটু লজ্জা পরে গেলাম আর বললাম না আপনি বলুন,, তখন উনি আমায় জিগ্গাসা করলেন যে আপনি ভূত বিশ্বাস করেন আমি নরম্যাল হয়ে বলি জ্বী না!! 😊তারপর উনি বলেন আজ উঠি একদিন আমার বাসায় আসবেন একটা ঘটনা আপনাকে বলবো,, আমি বললাম আমাকে কেন!? উনি বললেন আপনি সাইনটিস্ট হতে পারে এই ঘটনার কোন ব্যাখ্যা দিতে পারবেন,,,!!! তার ঠিক দুইদিন পর আমি ওনার বাসায় যাই গিয়ে দেখলাম ওনার বইয়ের তাক সারি সারি করে সাজাঁনো ওনাকে জিগ্গাসা করলাম এইখানে ঠিক কতগুলি বই আছে উনি বলে প্রায় ১৬০০০,,,,আমি রীতিমত হা হয়ে থাকি তাছাড়া ওনার বেডরুমেও অনেক বই রয়েছে,,,,,,তারপর উনি আমায় জিগ্গাসা করলেন চা খাবেন তো!? আমি বললাম!! না থাক উনি তাও নিয়ে এলেন নিজে বানিয়ে তারপর , ,,, উনি শুরু করলেন ওনার ঘটনা : তখন উনি পড়তেন ইন্টারমিডিয়েট এ,,, তখন ছিলও প্রায় শীতের সময় বাসায় আসতে প্রায় সন্ধ্যা হয়ে যেতও একদিন আসার সময় দেখলেন পাড়ার ছোট ছেলে বিট্টু তার আসে পাশে অনেক ছেলেকে নিয়ে আগুন পোহাচ্ছে!!! বিট্টুর কোলে একটি বিড়ালছানা ছিলও শীতের কারণে ঐ বাচ্চাটা ডাক দিচ্ছি লো ঐ বিড়ালছানার পায়ে একটা ঘুমরু বাধা ছিলও,,,আমি ওদের একটু সামনে যেতেই ছেলেগুলি বিরক্তির চোখে তাকালো আমার দিকে তারপর আমার নাকে হঠাৎ কেরোসিনের গন্ধ এলো দেখতে পেলাম বিড়ালছানা টার গায়ে কেরোসিন এ মোড়ানো একটি কাপড়,,,, 😷আমি বিট্রুকে বললাম বিড়ালটিকে ছেড়ে দিতে কিন্তু ও বললো না,,, আমি বললাম কেনও তখন ওদের মধ্য একজন বলে উঠলো যে বিট্রু বিড়ালছানাকে আগুনে ছেড়ে দেবে তারপর বিড়ালটি দৌড় দিবে আর তারা ঐ ঘুমুর এর শব্দে আনন্দ নেবে!!!! বলতে না বলতে ও ছেড়ে দিলো বিড়ালটাকে আগুনে আমি বাচাঁতে গেলাম ঐ বিড়ালটাকে কিন্তু পারলাম না তার আগে আমার টি- শার্ট & প্যান্ট এ আগুন ধরে যায়,,,,উনি এই বলে একটু থামলেন!!! তখন আমি বলি মানুষ তো মানুষকেও এখন বাঁচাতে যায় না আর আপনি একটা বিড়ালছানা কে বাচাঁনোর জন্য নিজের জীবনকে বিপদ এ ফেললেন!? উনি আমাকে থামিয়ে বললেন,,,,ঘটনা তো এখনও শুরু হয় নি তারপর উনি বললেন আমি অনেকদিন হসপিটালে থেকে বাসায় সুস্হ্য হয়ে আসি,,,,, আসার পর জানালা দিয়ে আবসা সন্ধ্যার সময় দেখতে পাই কিছু বিড়াল ঝাক বেধে বসে আছে!!!!! আর ওদের চোখ আমার চোখাচোখি পরার পর ওরা নিচের দিকে তাকিয়ে থাকতো তাছাড়া আমি ঐ মৃত বিড়ালছানাটাকেও তাদের মাঝে দেখতে পাই,,,,, প্রায় সময় বাইরে যাওয়ার সময় দুইটা তিনটা বিড়াল আমার পিছু ধরতো,,,, এমন ঘটনা দেখে প্রায় মানুষরা জানতে পারে,, একমাস বা তিনমাস বা একবছর পর পর ঐ বিড়াল গুলির মাঝে মৃত বিড়ালটাকে শুধু আমি দেখতে পেতাম,,, এর মাঝে আনিসুজ্জামান সাহেব কে থামিয়ে আমি বললাম এই মাস খানেক এর মাঝে কি আপনে ঐ মৃত বিড়ালকে দেখেছেন!? উনি উওরে বললেন না তবে!!! আমি বললাম তবে কি!? উনি বললেন এই ঘটনার কোন ব্যাখ্যা আপনি দিতে পারবেন!? আমি কিছু বললাম না, তারপর ওনার থেকে বিদায় নিয়ে বাসায় চলে আসি তার দুইদিন পর খুব বৃষ্টি হচ্ছিলো আনিজ সাহেব আমায় মধ্য রাতে কল দিয়ে বলে রেহান সাহেব আজ তো আমাব্যশা মৃত বিড়ালটি দেখার সম্ভাবনা রয়েছে আসবেন নাকি এই কথা শোনার পর আমি কল কেটে কম্বল গায়ে দিয়ে শুয়ে পরলাম!!!!

No comments:

Post a Comment