da4ba7d1b5688305010f9df38ec6fbfe045d25e0 Most Terrible horror ghost stories in bangla: #দ্যা_ডেভিল_ফ্রেন্ড
name="propeller" content="2ed678d440884c082cf36a57cdf105f7"

Monday, December 11, 2017

#দ্যা_ডেভিল_ফ্রেন্ড

3d illustration of scary ghost woman screaming in hell,Horror background,mixed media


"দীপুর" অবস্থা দিন দিন পরিবর্তন হচ্ছে।তার আচার আচরণেরও বেশ পরিবর্তন দেখা যাচ্ছে। ইদানিং তার একা একা কথা বলার প্রবণতাও খুব বেড়েছে।তবে "দীপু" এখন আর কারো সাথে কথাও বলে না।
সে তার নিজের একটা আলাদা রাজ্য গড়ে তুলেছে। সেখানে তার নিজের আদেশ নিষেধ চলে। অন্য কারোর কথা শোনার প্রয়াস নেই। তার যা ইচ্ছা তাই করে। কারো ইচ্ছা অনিচ্ছার তোয়াক্কা করে না সে।
"দীপু" তার বন্ধুর জন্য একটা সুন্দর নাম খুঁজতে থাকে। তার এই অদৃশ্য বন্ধুর জন্য একটা সুন্দর নাম প্রয়োজন। কিন্তু কি নাম দেয়া যায়?? দীপু মাঝে মাঝে চিন্তা করে আমার নাম তো "দীপু" আর ওর নামও "দীপু" ই হবে।
কাল্পনিক বন্ধুর সাথে কথা বলে "দীপু" তার বন্ধুর নাম দেয় "দীপু"। কিন্তু তার বন্ধুর এই নাম পছন্দ হয়নি। কাল্পনিক বন্ধুটি দীপুর দেওয়া নামের আগে "ডেভিল" যোগ করে তার পুরো নাম দেয় " ডেভিল দীপু"।
"ডেভিল"!!! শব্দটা শুনেই "দীপু" এই প্রথম বারের মত তার কাল্পনিক বন্ধুকে ভয় পায়। এই শব্দটা শুনেই তার মধ্যে অন্যররকম অনুভূতির প্রকাশ পায়। আচ্ছা তার এই বন্ধু হঠাৎ ডেভিল হবার চিন্তা করে কেনো???
কিছুদিন হলো দীপুর সেই কাল্পনিক বন্ধুর সাথে তার তেমন কথা হয়না। কয়েকদিন ধরে তার এই বন্ধু কাজের বিনিময় চাইতে শুরু করেছে । যদি "ডেভিল দীপু" কোন কাজ করে দেয় তবে "দীপুকে" কোন কিছু হারাতে হয়।
কয়েকদিন আগে যখন সেই প্রতিবন্ধী বন্ধুটা ভালো পারফর্ম করেছিল তখন "দীপু" কে তার প্রিয় "ময়না"পাখিটা হারাতে হয়েছিল। কারণ তার কাল্পনিক বন্ধু রক্তের স্বাদ নিতে চেয়েছিল........ সবসময়ই তাকে কিছু পাবার জন্য কিছু হারাতে হতো....
এবার "দীপু" তার সব ইচ্ছা পূরণ করার আবদার করেছিল তার কাল্পনিক বন্ধুর কাছে। তবে তার কাল্পনিক বন্ধু এর জন্য বিনিময় চেয়ে বসে .... যদি "দীপু" যা ইচ্ছা তা করতে চায় তবে তাকে তার সব থেকে প্রিয় মানুষটিকে হারাতে হবে .. এমনটাই বলেছিল....
সবথেকে প্রিয় মানুষ!!! শুনেই অবাক হয় "দীপু"। তার সব থেকে প্রিয় বলতেই তো "অহনা "। তার মানে যদি সে তার সব ইচ্ছা পূরণ করতে চায় তবে তাকে "অহনা"কে হারাতে হবে। সেই ভয়েই "দীপু" তার কাল্পনিক বন্ধু "ডেভিল দীপুর" সাথে কথা বলা বন্ধ করে দেয়।
কিছুদিন ধরে "দীপুকে" রাস্তায় একা একা দেখা যায় না। তার সেই কাল্পনিক বন্ধুর সাথে কথা বলাও হয়না। দীপু শুধু এটাই জানে যে সে যেকোন কিছু করতে পারবে কিন্তু তার "অহনা"কে হারাতে পারবে না।যার জন্য এখন আর তেমন কথা বলা হয়না বন্ধুর সাথে।
এলাকার সবাই বেশ অবাক! হঠাৎ করে "দীপু"র এই পরিবর্তন কেনো??? কেউ কোন উত্তর খুঁজে পায়না । রাস্তায় এখন আর "দীপুকে" একা একা কথা বলতে দেখা যায় না। তার এখন দুএকটা বন্ধুও জুটে গেছে।
এখন তার সব থেকে কাছের বন্ধু হচ্ছে "রবিন "। যখন "দীপু"র কাছে অদৃশ্য শক্তি অর্থাৎ তার কাল্পনিক বন্ধু ছিল তখনই "দীপু" অনেক বন্ধু খুঁজে পেয়েছিল। তাদের মধ্যে রবিন একজন। এখন "দীপু" আগের মত স্বাভাবিক ও হাবার মতোন হয়ে গেছে.... সব বন্ধুই তাকে ছেড়ে গেলেও রবিন তাকে ছেড়ে যায় নি।
"দীপু" আর "রবিন" এখন বেশ ভালো বন্ধু । একজন কে ছাড়া অন্যজনের চলেনা। "দীপু"ও এখন আর তার ডেভিল বন্ধুর সাথে কথা বলা বন্ধ করে দেয়। তবে তার ডেভিল বন্ধুটি এখনো তার আশে পাশে থাকে এবং যেকোন বিপদে তাকে সাহায্য করে....খুব বেশি বিপদে পড়লে "দীপু"কে তার কাছ থেকে সাহায্য নেবার আহবান করে সে.....
তবে "রবিন"কে খুব কাছে পাওয়ায় "দীপু" এখন তার ডেভিল বন্ধুকে সময় দেয়না। তাছাড়া তেমন কথাও বলেনা তার সাথে। "দীপু" স্বাভাবিক হয়ে যাবার জন্য তার অবস্থা এখন আগের মতোন হয়ে গেছে। আগের মতই সবাই তাকে এখন অবহেলা করে,,, কেউ তাকে তেমন গূরুত্ব দেয়না এখন।
"দীপু" এখন প্রচুর মানসিক চাপে আছে। আগের মত জীবনটা এখন কেমন জানি অদ্ভুত লাগে। মাঝে মধ্যে মনে হয় সে তার ডেভিল বন্ধুর সাথে কথা না বলে ভুল করতেছে... কিন্তু তবুও রবিন কাছে থাকায় ডেভিল দীপুর সাথে কথা বলার ইচ্ছা হয়না তার....
কিছুদিন ধরে "দীপু"র ছোটবোন খুব অসুস্থ! অনেক ডাক্তার দেখানো হচ্ছে তবুও সে সুস্থ হচ্ছেনা। একেবারে মৃতপ্রায় অবস্থা তার। খুব ভালো চিকিৎসা না করতে তাকে বাঁচানো হয়ত যাবেনা। এর জন্য অনেক ভালো ভালো ডাক্তার দেখানো হচ্ছে তবুও সে সুস্থ হচ্ছেনা ।
"দীপু" হঠাৎ করে কি করবে কিছুই ভেবে পাচ্ছেনা। তার কি করা উচিত সেটাও ভেবে পাচ্ছেনা। তবে এখন কেমন জানি তার "ডেভিল দীপু"র কথা মনে হচ্ছে। ডেভিলকে স্মরণ করতেই সে দীপুর সামনে এসেই উপস্থিত হয়ে যায়।
তবে তার সেই আগের শর্ত কিছু পেতে হলে কিছু হারাতে হবে..!! "ডেভিলের" এই শর্তে "দীপু" নারাজ। যদি ডেভিল তার বন্ধুই হয় তবে শর্ত চায় কেনো?
তবে এবার হাবা "দীপু" খুব চালাক মনে করতে শুরু করেছে। সে তার ডেভিল বন্ধুকে নিজ থেকে আরেকটা শর্ত দিয়ে বসে। সে ডেভিলকে বলে দেয় যে,,,
"তার বোন পুরোপুরি সুস্থ হবে কিন্তু এর বিনিময়ে ডেভিল "অহনা"র আত্মা চাইবে না।" দীপুর শর্তে ডেভিল নিজ থেকেই রাজি হয়ে যায়।
তবে এবারো সে জিবনের বিনিময়ে জীবন চেয়ে বসে। যদি "দীপু" তার বোনকে সুস্থ হিসেবে পেতে চায় তবে তাকে তার বন্ধু
"রবিন" কে হারাতে হবে।
ডেভিলের এমন শর্তে "দীপু" চমকে উঠে। এখন তো "রবিন"ই তার সবথেকে কাছের বন্ধু। তবে কি বোন কে সুস্থ করতে হলে বন্ধুকে হারাতে হবে........!
(চলবে)

No comments:

Post a Comment